" crossorigin="anonymous"> মোটরসাইকেলের জন্ম বৃত্তান্ত Very good and a great vehicle 2023 - %sitena

মোটরসাইকেলের জন্ম বৃত্তান্ত Very good and a great vehicle 2023

মোটরবাইকে তো সবাই চাপেন কিন্তু জানেন কি ? কবে কোথায় কিভাবে আবিষ্কার হলো এই মোটরসাইকেল । কে আবিষ্কার করলো ও প্রথমে দেখতে কেমন ছিল এই মোটরবাইক, আর তার দামই বা কত ছিল এখন এসব নিয়ে আলোচনা করবো

মোটরসাইকেলের জন্ম বৃত্তান্ত Very good and a great vehicle 2023

1700 সালের শেষের দিকে আর 1800 সালের প্রথমদিকে সাইকেল আবিষ্কারর পর মানুষ ভাবনা শুরু করে কি ভাবে এই সাইকেল টিকে আরো উন্নতমানের বা Modify করা যায়।সাইকেলের গতির থেকে কি ভাবে এর গতি বাড়ানো যায়। কি ভাবে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় পৌঁছানো খুব তাড়াতাড়ি। কয়েকজন গবেষক এ নিয়ে গবেষণা করতে শুরু করে ।


অনেক প্রচেষ্টার পর বিজ্ঞানি রা এ কাজে সফলতা নিয়ে আসে । একটি প্রদর্শনী অনুষ্ঠানে সবার তৈরি মোটর সাইকেল নিয়ে আসা হয় । সকল প্রস্তুতকারক কে মোটরসাইকেল আবিষ্কারের কৃতিত্ব দেওয়া । তার মধ্যে সব থেকে গ্রহণযোগ্য হলো গটলিব ডেমলারের তৈরি মোটরসাইকেল। 1800 সালের মাঝামাঝি সময় গটলিব ডেমলার ও তার সঙ্গীরা মিলে পেট্রোলিয়াম চালিত একটি দুই চাকার যান আবিষ্কার করেন । যেটি দেখতে সাইকেলর মতোই ছিল । ঐ মোটর সাইকেলে এখনকার মতোই একটি ইঞ্জিন লাগানো ছিল যেটা পেট্রল চালিত ছিল । ঐ ইঞ্জিন পিছনের চাকাকে পরিচালনা করতো আর পিছনের চাকা সম্পূর্ণ গাড়িটাকে সামনের দিকে নিয়ে যেতে সাহায্য করতো । তখন এই গাড়ির গতিবেগ ছিল 15 কিলোমিটার মানে এক ঘন্টায় 15কিলোমাটার চলতে পারতো । আর তাতে পেট্রোল খরচ কত 5থেকে 6লিটার ।


কয়েক বছর পর আরো কয়েকজন বিজ্ঞানি ও এড ওয়াড বাটলার 1890 সালে পেট্রোল চালিত একটি তিন চাকার বাইক বা মোটরসাইকেল প্রস্তুত করেন । সে বাইকটিও বাজারে প্রসিদ্ধ লাভ করেছিল । ওই বাইকটি বাজারে জনপ্রিয়তা লাভ করলেও তিনটি চাকার জন্য সে বাইক টি কিছুদিন পরে বন্ধ হয়ে যায় ।
তারপর পর একটি জার্মান কোম্পানি 1895 সালে সর্ব প্রসিদ্ধ ও প্রথম বাণিজ্যিকভাবে সফল মোটরসাইকেল প্রস্তুত করেন । তখনকার বাজারে ব্যাপক সাড়া ফেলে দেয় । সবার কাছে বাইকটি গ্রহণযোগ্য হয় । জার্মান কোম্পানির তৈরি বাইক Modify হতে হতে এখনকার বাইকে রূপ নিয়েছে ।


একদম 1800 শতকের শুরুর কয়েকবছর পর প্রায় শেষের দিকে পেট্রোল চালিত দুই চাকার একটি মোটর বাইক বাজারে ব্যাপক প্রসিদ্ধ লাভ করেছিল । সবাইকে অবাক করে দিয়ে দুই চাকার এই মোটর বাইক টি শহরে, গ্রামে, পথে, প্রান্তে চলতে শুরু করে। দ্রুতগতি সম্পন্ন ও আয়তনের ছোট হওয়ায় চাহিদা দিন দিন বাড়তে থাকে । এই বাইকটির চাহিদা এত বেড়ে যায় যে দেশ থেকে বিদেশে পাড়ি দিতে শুরু করে । বিভিন্ন দেশের শহর থেকে নগর, সড়ক থেকে মহা সড়ক ও মানুষের মন জয় করতে থাকে ।


ঐ জার্মান কোম্পানি 1900 সালে দুই ইঞ্জিন ও চার স্ট্রোক বিশিষ্ট একটি বাইক বাজারে নিয়ে আসে । এই গাড়িটি পেটেন্ট কোম্পানি চুক্তি হিসাবে কিনে নেই । 1500সিসির এই বাইকটির ওজন ছিল 60কেজি আর গতি ছিল 55 কিলোমিটার ঘন্টায় ।


হাইডের ব্যান্ড ও উলফমুলার এর তৈরী বাইক বাজারে 5000 টি বিক্রি হয়। তারপর বন্ধ হয়ে যায় । এরপর বিশ্বে যে সব কোম্পানি গুলি গাড়ি বিক্রি করতে শুরু করে যেমন রয়াল এনফিল্ড , নর্টন, ইত্যাদি। ভারতে ও এশিয়া মহাদেশের কোম্পানির নাম সুজুকি সামুরাই,কাউসিকি, রাজদূত,রয়াল ইনফিলড ইত্যাদি।
এখন অনেক কোম্পানি বিভিন্ন রকম উন্নত মানের গাড়ি বাজারে নিয়ে এসেছে । তার মধ্যে বাজাজ,এপাচি,রয়েল ইনফিলড,ইয়ামাহা, ডিসকভারি ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য ।
তবে আগের পুরানো গাড়ির থেকে এখন উন্নত মানের নতুন নতুন ডিজাইনের গাড়ি বাজারে এসেছে । সেই সব গাড়ির দাম এখন অনেক বেশি । পেট্রোলের সঙ্গে সঙ্গে গাড়ির দাম হু হু করে বাড়ছে । যা সাধারণ মানুষের নাগালের বাইরে ।

মোটরসাইকেলের জন্ম বৃত্তান্ত Very good and a great vehicle 2023


মোটরসাইকেল চালানোর কিছু নিয়ম আছে য গুলো আপনাকে সব সময় মেনে চলতে হবে । আর যদি নতুন চালক হন সব নিয়মগুলি আপনাকে অবশ্যই মানতে হবে । আপনার যদি গাড়ি চালানোর অভিজ্ঞতা না থাকে তাহলে আপনার যেকোনো সময় বিপদ হতে পারে । তাই গাড়ি চালানো ভালো হবে শিখুন তারপর গাড়ি নিয়ে রাস্তায় বের হবেন ।


একদম নতুন চালকদের ক্ষেত্রে প্রথম যেটা মানতে হবে সেটা হলো মাথায় হেলমেট ও অন্য যেগুলো সেফটি গার্ড আছে সেগুলো পড়তে হবে । মাথায় হেলমেট পরাটা সবথেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ । গাড়ির ব্রেককশা ঠিক ভাবে আয়ত্ত করতে হবে । এবং ধীরে ধীরে ইঞ্জিন চালু করা শিখতে হবে । ইঞ্জিন টাই হলো গাড়ির জান । অতএব আপনাকে এই কাজটা আগে শিখতে হবে । কিভাবে পিকআপ কমাবেন বাড়াবেন সেটা শিখতে হবে ।

গাড়ির গতি বাড়ানো কমানো ভালো করে দেখে নিতে হবে । তাড়াহুড়ো করে কখনো গাড়ি চালাবেন । আবার কোন বন্ধু-বান্ধবের সঙ্গে গাড়ি নিয়ে প্রতিযোগিতায় নামবেন না । মোটরবাইক নিয়ে প্রতিযোগিতায় নামা এটা খুবই ভয়ংকর একটা কাজ । তাই এই কাজ কখনোই কোনদিন করতে যাবেন না ।


আমাদের দেশে প্রতিনিয়ত ছোটখাটো কিংবা যে ঘটনায় মৃত্যু নিশ্চিত এইরকম দুর্ঘটনা ঘটছে অহরহ বা সব সময় । মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় বেশিরভাগ ১৫ থেকে ২৫ এর ছেলেরাই বেশি এক্সিডেন্টে মারা যাচ্ছে । তার একটাই কারণ হাই স্পিডে গাড়ি চালানো । এই অ্যাক্সিডেন্টে কেউ হারাচ্ছেন বাবা-মাকে, কেউ হারাচ্ছে নিজের সন্তানকে, আবার কেউ হারাচ্ছে আত্মীয়-স্বজনকে, আবার কেউবা হারাচ্ছে নিজের প্রেমিককে ।

আবার কেউ এক্সিডেন্ট করে প্রাণে বেঁচে গেলেও হয়ে যাচ্ছেন পঙ্গু । আরে পঙ্গুত্ব অবস্থায় সারা জীবন বাড়িতেই বসে থাকছেন সারাজীবন পরিবারের বোঝা হয়ে । এমন মোটর বাইকার আছে যারা কানে হেডফোন লাগিয়ে মোটরসাইকেল চালান তাদেরকে বলছি তারা এখনো সাবধান হন । এই কানে হেডফোন লাগানোর জন্য অচিরেই কত প্রাণ ধ্বংস হয়ে গিয়েছে তা একটু সংবাদ মাধ্যমের দিকে তাকালেই দেখতে পাবেন ।


তাই সমস্ত বাইক চালকদেরকে বলছি আপনারা এত জোরে গাড়ি চালাবেন না যাতে মৃত্যুর ঝুঁকি বেড়ে যায় । আস্তে গাড়ি চালান তাহলে অনেক অ্যাক্সিডেন্ট থেকে বাঁচা যাবে । আস্তে গাড়ি চালান এবং নিজের জীবনের যে আনন্দ সেটা বাড়িতে এসে সবাইকে নিয়ে উপভোগ করুন । আপনি এবং আপনার পরিবার এতে সুরক্ষিত থাকবে ।
মোটরসাইকেল মানেই যে জোরে চালাবেন এটা কখনোই নয় । আর জোরে চালানো টা বাহাদুরি নয় বরং বোকামি । আপনি যখন জোরে গাড়ি চালিয়ে যাবেন রাস্তা দিয়ে তখন কিন্তু আপনাকে রাস্তার অন্য লোকেরা অভিশাপ দিতে থাকবে ।

এখন বাজারে এসেছে নতুন ইলেকট্রিক বাইক

এখন বর্তমানে পেট্রোলের অনেক দাম তাই বিভিন্ কোম্পানিগুলি তাদের ইলেকট্রিক বাইক বাজারে ছেড়েছে। তাই পেট্রোল কিনার ভয়ে মানুষ ইলেকট্রিক গাড়ি বেশি কিনছে বা ব্যবহার করছে এতে টাকা সাশ্রয় এবং এক্সিডেন্ট এর পরিমাণ অনেক কম হচ্ছে। ইলেকট্রিক বাইকের গতি পেট্রোল চালিত মোটরসাইকেলের থেকে অনেক কম। ইলেকট্রিক বাইক গুলি বাজারে আসাতে পেট্রোল চালিত বাইক অনেক অংশে বিক্রয় কম হচ্ছে ।

এতে মোটরসাইকেল কোম্পানিগুলি তাদের ব্যবসায় কিছুটা ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে । আবার পেট্রোল চালিত মোটর সাইকেলের থেকে ইলেকট্রিক বাইক গুলোর দাম অনেক কম । তাই ক্রেতারাও এ গাড়িগুলিকে হুড় মুড়িয়ে কিনতে শুরু করেছে । আবার এই ইলেকট্রিক বাইক গুলিতে বাড়তি খরচ কম যেমন এতে কোন ড্রাইভিং লাইসেন্স লাগে না, ধোয়াচেক বা ইন্সুরেন্স লাগেনা এবং চালানও খুব সহজ তাই সাধারণ মানুষ এই ইলেকট্রিক বাইক গুলি কেই বেশি পছন্দ করছে ।

Read More>>>>>

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *