" crossorigin="anonymous"> 379 জন যাত্রী ও 21জন ক্রু মেম্বার বোঝায় একটি বিমান পুড়ে ছাই হয়ে যায় Very good and wonderful air travel - Sukher Disha...,

379 জন যাত্রী ও 21জন ক্রু মেম্বার বোঝায় একটি বিমান পুড়ে ছাই হয়ে যায় Very good and wonderful air travel

যার জীবন আছে তার মরণ আছে । কে কিভাবে মরবে তা সকলের অজানা । এক্সিডেন্ট করার পর কেউ মৃত্যুবরণ করে । কেউ আবার এক্সিডেন্টের পর বেঁচে ফিরে আসে ।হ্যাঁ আজ নতুন বছরের শুরুতে আপনাদেরকে এই রকমই একটা এক্সিডেন্টের কথা জানাবো যা শুনলে আপনারাও অবাক হয়ে যাবেন ।

379 জন যাত্রী ও 21জন ক্রু মেম্বার বোঝায় একটি বিমান পুড়ে ছাই হয়ে যায় Very good and wonderful air travel

মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের সৃষ্টি অসংখ্য মাখলুক । কিছূ মাখলুক যাদের প্রাণ আছে ও যারা চলাফেরা করতে পারে । আর কিছু মাখলুকের প্রাণ আছে কিন্তু চলাফেরা করতে পারে না ।মানুষ অথবা অন্য কোন প্রাণী সে যাই হোক না কেন এক ভাষায় যাদের জীবন আছে আর তাদের মরন ও আছে । প্রতিটি প্রাণীকেই তাদের মরণের স্বাদ একবার নিতেই হবে । সে যেখানে যাক আর যেখানেই থাকুক যদি পৃথিবীর বাইরেও থাকে তবুও তাকে একবার মরতেই হবে ।

এই মৃত্যুকে ভয় সবাই করে । সে যে বয়সেরই হোক না কেন । মরন কথাটা শুনলেই ভয় লাগে । এই সুন্দর পৃথিবী ছেড়ে কেউ কোনদিন যেতে চায় না । সবাই চাই সুস্থ জীবন নিয়ে বৃদ্ধ হওয়া পর্যন্ত বেঁচে থাকতে । কিন্তু কজন তা পাই ও কজনের ইচ্ছা পূরণ হয় । কার মরন কোথায় কিভাবে লেখা আছে তা কেউ জানে না । তবে একদিন মরতেই হবে এটা সবাই জানে । কতো এক্সিডেন্টে কত মানুষ মরছে । কত মানুষ তার আপনজনকে হারাচ্ছে । আবার কত মানুষ এক্সিডেন্ট করেও ফিরে আসছে পঙ্গু হয়ে । পঙ্গু অবস্থাতেই রয়ে যাচ্ছে পরিবারের কাছে বোঝা হয়ে । আবার কত মানুষ অ্যাক্সিডেন্ট করে সহিসালামতে ফিরে আসছে আপন পরিবারের কাছে ।

আসলে ঘটনাটি কি হয়েছিল দেখা যাক

নতুন বছরের শুরুতে জাপানের শহর টোকিও সেখানকার হানেদা বিমানবন্দরে জাপান এয়ারলাইন্সের একটি বিমানে বিধ্বংসী আগুন লেগে যায় । সেই হানেদা বিমানবন্দরে একটি বিমান পুড়ে ছাই হয়ে যায়। জাপান এয়ারলাইন্সের একটি বিমান 379 জন যাত্রী ও ২১ জন ক্রু মেম্বার নিয়ে অবতরণ করছিল । জাহাজের অন্য কোন ত্রুটি ছিল না । এই যাত্রীবাহী বিমানটি নিরাপদেই অবতরণ করছিল ।

কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত রানওয়েতে অবতরণ করার পরেই একটি জাপানের উপকূল বাহিনীর বিমানের সঙ্গে ধাক্কা লাগে আর ধাক্কা লাগের পরেই ঐ বিমান টিতে আগুন ধরে যায় । এবং ওই আগুন ধরা অবস্থাতেই বিমানটি ছুটতে থাকে । বিমানবন্দরের যত ফায়ার সার্ভিসের ইঞ্জিন ছিল সে গুলিও ছুটতে থাকে ও সঙ্গে সঙ্গে আগুন নিভানোর কাজ শুরু করে দেয় । ও যাত্রীদের উদ্ধার কার্য শুরু হয় ।সর্বশেষ পাঁচজন নিহত হয়েছে বলে জানা যায় ।

স্থানীয় সংবাদ মারফত জানা যায় ঐ 379জন যাত্রী ও 21জন ক্রু মেম্বার বোঝাই বিমানটি পুড়ে ছাই হয়ে যায় । সমস্ত ফায়ার সার্ভিসের ইঞ্জিন এর চেষ্টায় বিমানটিকে পড়ানোর হাত থেকে রক্ষা করা যায়নি। কিন্তু বিমানটিকে রক্ষা করা না গেলেও ঐ 379 জন যাত্রী ও 21 জন ক্রু মেম্বারকে নিরাপদে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে । তাদের কোনো ক্ষতি হয়নি বলে জানানো হয়েছে।379জন যাত্রী ও 21জন ক্রু মেম্বার বোঝায় বিমানে আগুন লেগে যাওয়াতে জাপান বিমান বন্দরের নিরাপত্তা বাহিনীর গাফিলতির ঈঙ্গিত আসতে শুরু করেছে ।

আগুন মারাত্মক আকার ধারণ করে । আগুন এত তীব্র ছিল যে তার কাছে যাওয়া খুবই মুসকিল ছিল । কিন্তু এর মধ্যেই সমস্ত যাত্রীদের কে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে । জাপানের হানেদা বিমান বন্দর টি অনেক উন্নত মানের হওয়া‌ সত্ত্বেও বিমানে আগুন লেগে যাওয়া একটি দুর্ঘটনা । এর পরে ঐ বিমান বন্দরে অনেকক্ষণ বিমান উঠা নামা বন্ধ রাখা হয়েছিল । আগুন যাতে বিমান বন্দরের অন্য কোন জায়গায় ছড়িয়ে না পড়ে তার জন্য বেশ কিছুদূর পর্যন্ত বিমানবন্দর ফাঁকা করা হয়েছে ।

বিমানটির 379জন যাত্রী ও 21 জন ক্রু মেম্বার কে উদ্ধার করা গেলেও যাত্রীদের কোন লাগেজ ও অন্য কিছু উদ্ধার করা যায়নি । যাত্রীদের বক্তব্য তাদের সামান্ পত্র না পেলে কি হবে তারা যে প্রাণে বেচে গিয়েছে এটাই তাদের বড়ো পাওয়া ।তারা আবার বাড়ি ফিরে যেতে পারবে এটাই তাদের বড়ো আনন্দের । এতে সব ধরনের মানুষ দুঃখ প্রকাশ করেছে ।

বিশ্বের উন্নত দেশ গুলির মধ্যে জাপান অন্যতম । জাপান পৃথিবীর সমস্ত ইলেকট্রিক সরঞ্জাম এর মধ্যে প্রায় 20% বিদেশে রপ্তানি করে । এখান থেকে জাপান সরকার অনেক মুনাফা অর্জন করে । আবার কয়েকদিন আগে এক বিধ্বংসী ভূমিকম্পে প্রায় 80 জন নিহত হয়েছে ও অনেক ঘর,বাড়ি,অফিস ,আদালত, কোট ,কাচারি ধ্বংস হয়েছে । জাপানে প্রায়ই ভূমিকম্প হতে দেখা যায় । এই জাহাজ এক্সিডেন্টে পাঁচজন নিহত হয়েছে বলে জানা যায় । সব মিলিয়ে প্রচুর টাকার ক্ষতি হয়েছে ।

পরিশেষে

এটা একটি দুর্ঘটনা মাত্র । সবার জীবনে যে ঘটবে এমনটা নয় । এই ভয়ে যে জাহাজে ভ্রমণ বাদ দিবেন তা কিন্তু কখনোই করবেন না । তাহলে আপনার জাহাজে চলার যে আনন্দ সেটা থেকে বঞ্চিত হবেন । জাহাজ যখন অনেক উপর দিয়ে উড়ে তখন নিচের প্রকৃতি দেখতে খুবই সুন্দর লাগে

Read More>>>>

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *